Tuesday, মে ২১, ২০২৪

“বাংলাদেশের টেকসই কৃষিক্ষেত্র ও জলবায়ু পরিবর্তন নিরসনের জন্য শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণের মাধ্যমে গ্রামাঞ্চলে সাজনার চাষের প্রচুর সম্ভাবনা”

শেয়ার করতে এখানে চাপ দিন

কৃষিবিদ অধ্যাপক ড. আমিন উদ্দিন মৃধা

‌’একজন শিক্ষার্থী একটি খামার’ হলো একটি স্বপ্ন যা দেশের জনগণের জীবনমানের উন্নয়নের জন্য বিভিন্ন পর্যায়ের শিক্ষার্থীদের মাধ্যমে গ্রাম ও শহরে বসবাসরত সাধারণ মানুষের দোরগোড়ায় কৃষিকাজকে (খাদ্যশস্য, পশু-পাখিপালন, মৎসচাষ, বনায়ন) জনপ্রিয় করা। আর এই প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হবে প্রধানত স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের উদ্যোগে। মূলত সরকারের সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় ও বিভাগের উদ্যোগে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষকে নির্দেশনা প্রদানের মাধ্যমেই যেখানে প্রত্যেক শিক্ষার্থী তাদের নিজ বাড়ির আঙ্গিনায় বাগান তৈরি করবে। দ্বিতীয়ত যেসব পরিবারে কোন শিক্ষার্থী নেই, সেই সব পরিবারের কাছে সরকারের এই নির্দেশনা বাস্তবায়িত হবে ইউনিয়ন কাউন্সিলের চেয়ারম্যানের নিবিড় তত্ত্বাবধানে। তৃতীয়ত এই প্রকল্পটি বাস্তবায়নে স্থানীয় এবং বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি সংস্থার পাশাপাশি রাজনৈতিক সংগঠনের তৃণমূল পর্যায়ের জনগোষ্ঠির সাহায্যও নিতে পারে।

এই ধারণার অধীনে, বিভিন্ন ধরণের কৃষির পাশাপাশি, আমরা প্রতিটি স্তরের শিক্ষার্থীদের দ্বারা প্রতিটি ঘরে সাজনা চাষের বিষয়টি স্পষ্টভাবে উল্লেখ করেছি। এই প্রকল্পের একটি গুরুত্বপূর্ণ দিক হলো- এতে সরকারের কাছে বাজেট প্রণয়নের বিষয়ে কোন প্রস্তাবনার প্রয়োজন নেই। দায়িত্বপ্রাপ্ত সংস্থার স্থানীয় উৎসই এখানে কাজে লাগানো যেতে পারে।

সাজনা (Moringa) দ্রুত বর্ধমান চিরসবুজ গাছের প্রজাতি যা ১৩ টি প্রজাতির সমন্বয়ে গঠিত। তাদের ভারতবর্ষে আদিবাসী বলে ধারণা করা হয়, যেখান থেকে এগুলি অনেক গ্রীষ্মমণ্ডলীয় এবং উপনিবেশীয় দেশগুলিতে প্রবর্তিত হয়েছে এবং এখন বাংলাদেশসহ বিশ্বজুড়ে চাষাবাদ হচ্ছে। সাজনা গাছ মানব খাদ্যের জন্য পুষ্টির এক দুর্দান্ত উৎস এবং মানব রোগের জন্য দেশীয় পদ্ধতিতে বিভিন্ন অসুস্থতার চিকিৎসা হিসাবে বিবেচিত হয়। সাজনা গাছের পাতা এবং ফলের মধ্যে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন, ভিটামিন, খনিজ, অ্যান্টিঅক্সিডেন্টস এবং পুষ্টিগত ও ঔষধি মানের ফাইটোকেমিক্যাল রয়েছে। ফলস্বরূপ, এটি একটি অলৌকিক গাছ হিসাবে বিবেচিত হয়। পাতা, ফল, ফুল এবং রোস্ট বীজ শাকসবজি হিসাবে ব্যবহৃত হয়; শিকড় একটি মশলা হিসাবে ব্যবহৃত হয়; বীজ রান্না এবং প্রসাধনী তেল জন্য ব্যবহৃত হয়। উদ্ভিদের গুরুত্বপূর্ণ প্রতিরোধক এবং নিরাময়মূলক যৌগ রয়েছে, যা অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল এজেন্ট হিসাবে ব্যবহৃত হচ্ছে। সাজনা গাছ অন্যান্য অনেক উদ্দেশ্যে যেমন জল পরিশোধক, সবুজ সার, মাইকোট্রফিক উদ্ভিদ, বনজ পুনরূদ্ধার, কীটপতঙ্গ নিয়ন্ত্রণ, পশুর খাবার ইত্যাদি ব্যবহার করা হয়। এর বহু অর্থনৈতিক গুরুত্ব, সহজ বংশ বিস্তার এবং জলবায়ু ও মাটির বিভিন্ন অবস্থার অধীনে চাষাবাদে টেকসইতার কারণে; উদ্ভিদটি বাংলাদেশে বৃহৎ আকারে চাষের জন্য উপযুক্ত।

উদ্ভিদটি অত্যন্ত খরা সহনশীল এবং শুষ্ক ও আধা-অঞ্চলের অঞ্চলে ব্যাপকভাবে চাষ হয়। এটি বিভিন্ন ধরণের মাটির চাষ করা যেতে পারে তবে ভালভাবে শুকানো বেলে দোআঁশ বা দোআঁশ মাটি পছন্দ করে। এটি মাটির পিএইচ পাঁচ থেকে নয় সর্বোত্তম । সাজনা বেশিরভাগ পোকামাকড় এবং রোগ প্রতিরোধী। এই সমস্ত পরিবেশগত কারণ এবং মাটির পরিস্থিতি বাংলাদেশে সাজনা চাষের পক্ষে অত্যন্ত অনুকূল। সজনে ডাটা প্রধাণত দুই প্রজাতির। এর মধ্যে এক প্রজাতি (বারো মাসি ) বছরে তিন থেকে চার বার পাওয়া যায়। অন্য প্রজাতির সজনে বছরের গ্রীষ্ম মৌসুমে একবারই পাওয়া যায়। সজনে চাষের জন্য বিশেষ কোন পদ্ধতি গ্রহণ করতে হয় না। এর জন্য আলাদা কোন জমিও প্রয়োজন হয় না। যদিও এটি জমির ফসল হিসাবে চাষ করা যায়। যে কোন পতিত জমি, পুকুর পাড়, রাস্তার বা বাঁধের ধার, বাড়ির আঙ্গিনা এমনকি শহরে যে কোন ফাঁকা শুষ্ক জায়গায় সজনে গাছ লাগানো যায়। সজনে বীজ, চারা এবং প্রধাণত শাখা কাটা থেকে চাষ করা হয়। গাছের ডাল কেটে মাটিতে পুঁতে রাখলেই সজনে গাছ জন্মায়। পতিত জমি, রাস্তার ধার, বাড়ির আঙ্গিনা বা শহরে বাসাবাড়ির আনাচে কানাচে সজনে গাছ লাগিয়ে অনেকেই বাড়ির চাহিদা মিটিয়েও বাজারে বিক্রি করে আর্থিকভাবে লাভবান হচ্ছেন।

যেমনটি আমরা উল্লেখ করেছি যে বসতবাড়িতে সাজনা লাগানোর কাজটি সকল স্তরের শিক্ষার্থীরা করতে পারে।

সকল ধরণের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সহযোগিতা ও নির্দেশনায় শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের ও কৃষি মন্ত্রণালয়ের সাথে যৌথভাবে সাজনার আবাদ কার্যকর করা যেতে পারে। এক্ষেত্রে দেশের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলিতে পরামর্শ দেওয়ার ক্ষেত্রে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অগ্রণী ভূমিকা থাকবে। প্রাথমিকভাবে, যে শিক্ষার্থীরা সরকার থেকে বৃত্তি পাচ্ছে তাদেরকে বৃক্ষরোপণ করতে পরামর্শ দেওয়া হবে। তারপরে অন্যান্য শিক্ষার্থীরা একই প্রোগ্রামে নিযুক্ত থাকবে। এই উদ্ভাবনী কর্মসূচিটি কৃষি ও শিক্ষা সম্পর্কিত স্থানীয় সরকার এবং বেসরকারি কর্তৃপক্ষ এবং সংস্থাগুলি জড়িত থাকতে পারে।

আমরা যদি বাংলাদেশের ত্রিশ মিলিয়নেরও বেশি পরিবারের প্রতিটি ঘরে একটি বা দুটি সাজনা গাছ রোপণ করতে পারি তবে আমাদের কমপক্ষে তিন থেকে ছয় মিলিয়ন সাজনা গাছ থাকবে। আমরা যদি প্রতিটি গাছ থেকে কমপক্ষে পাঁচ থেকে দশ কেজি ফল পাই তবে আমাদের দেশে প্রচুর পরিমাণে ফল খাওয়ার জন্য পাওয়া যাবে। এই করোনার সংকটে, সাজনা ফল ও পাতা খাওয়া আমাদের স্বাস্থ্যের পরিস্থিতি এবং প্রতিরোধ ক্ষমতা উন্নত করবে। অন্যদিকে, এটি শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণের গ্রামাঞ্চলে সাজনার চাষের মাধ্যমে বাংলাদেশের টেকসই কৃষিক্ষেত্র ও জলবায়ু পরিবর্তন নিরসনে কাজ করবে।

কৃষিবিদ অধ্যাপক ড. আমিন উদ্দিন মৃধা : সাবেক উপাচার্য, পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, পাবনা।

শেয়ার করতে এখানে চাপ দিন

সর্বশেষ খবর