Tuesday, মে ২১, ২০২৪

সাঁথিয়ায় চলাচলের রাস্তায় বেড়া,অবরুদ্ধ ১৬ পরিবার

শেয়ার করতে এখানে চাপ দিন

আরিফ খাঁন : পাবনা সাঁথিয়া উপজেলায় বসতবাড়ি থেকে বের হওয়ার রাস্তায় খুটি দিয়ে নেট জালের বেড়া দেওয়ায় ১৬টি পরিবার অবরুদ্ধ হয়ে পড়েছে।
উপজেলার কাশিনাথপুর ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়ার্ডের শিবরামবাড়ি চরকলাগাছী গ্রামে রবিবার (১১ জুন) ঘটনাটি ঘটে।
অবরুদ্ধ পরিবারের সাথে কথা বলে জানা যায়, জালাল উদ্দিন মন্ডল ও ময়নুল মন্ডল তারা দুইভাই তাদের বসতবাড়ির জায়গা ভাগবাটোয়ার জন্য আমিন দিয়ে মাপেন। তাদের বাড়ির পাশ দিয়ে প্রতিবেশিদের চলাচলের জন্য বহুবছরের পুরনো একটি রাস্তা ছিল সেই রাস্তায় বাঁশের খুঠির  সাথে নেট জাল দিয়ে রাস্তা বন্ধ করে দেন। এতে প্রতিবেশিদের কোনমতে একজন মানুষ চলাচলের রাস্তা অবশিষ্ট থাকে। পরে অন্য প্রতিবেশি বকুল হোসেন ও আলাউদ্দিন ক্ষুব্ধ হয়ে তাদের জায়গাতেও তারা বেড়া দিলে রাস্তাটি একেবারেই বন্ধ হয়ে যায়। এতে ১৬টি পরিবারের ১২০ জন মানুষ অবরুদ্ধ হয়ে পড়েন। এতে সবচেয়ে বিপাকে পড়েছে বন্দি পরিবারের কয়েকজন অসহায় ভ্যান চালকেরা। তারা বাড়ি থেকে ভ্যান  বের করতে পারছে না। এমনকি ঐ পরিবারগুলোর স্কুল পড়–য়া ছেলে মেয়ে এক কিলোমিটার পথ ঘুরে মানুষের ফসলি জমি দিয়ে স্কুলে যাতায়াত করছেন। ফসলি জমির মালিকরাও তাদেরকে বাধা দিচ্ছেন বলে জানান ভুক্তভুগিরা। এ বিষয়ে দ্রুত সমাধান চেয়ে কাশিনাথপুর ইউপি চেয়ারম্যান বরাবর ভুক্তভোগিরা একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।
অবরুদ্ধ পরিবারের ভ্যান চালক কাদের আলী বলেন, আমি গরীব মানুষ সপ্তাহে আমর সাড়ে সাতশ টাকা কিস্ত আছে। সোমবার ভ্যান বের করতে পারিনাই কামাইও করতে পারি নাই। তাই বাড়ির মুরগি বেঁচে কিস্তি দিছি আজ। আমার মত আরো তিন-চার জন বাড়ি থেকে ভ্যান বের করতে পারছে না। আমরা খুব কষ্টে আছি।
রাস্তা অবরুদ্ধ করা বকুল হোসেন জানান, আমি সারাজীবন মানুষের যাতায়াতের জন্য আমার অনেকখানি জায়গা ছেড়ে দিয়ে আসছি বরাবরই কিন্তু আমার প্রতিবেশি জালাল উদ্দিন মন্ডল ও ময়নুল মন্ডল প্রতিহিংসায় তাদের জায়গার উপর দিয়ে বেড়া দিয়ে সকলের চলাচলের রাস্তা প্রায় একেবারেই বন্ধ করে দেন। একারণে আমিও রেগে আমার জায়গার উপর বেড়া দিয়েছি যাতে করে  রাস্তাটির একটা স্থায়ী সমাধান হয়।
কাশিনাথপুর ইউপি চেয়ারম্যান মীর মঞ্জুর এলাহী জানান, এবিষয়ে আমি একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। যেহেতু ব্যাক্তি মালিকানাধীন সম্পত্তি তাই আগামী বুধবার গ্রাম আদালতের মাধ্যমে সমাধান করা হবে বলে তিনি জানান।
সাঁথিয়া উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভুমি) মোহা. মনিরুজ্জামান জানান, এ বিষয়ে আমি কোন অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে তদন্তসাপেক্ষে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

শেয়ার করতে এখানে চাপ দিন

সর্বশেষ খবর