Tuesday, এপ্রিল ১৬, ২০২৪
শিরোনাম
আটঘরিয়ায় পহেলা বৈশাখ বাংলা নববর্ষ  উদযাপন উপলক্ষে প্রস্তুতিমুলক আলোচনাআটঘরিয়ার লক্ষীপুরে ব্রীজ ভেঙে ফেলায় বাঁশ কাঠের সাঁকো দিয়ে ১৫ হাজার লোকের পাড়াপারআটঘরিয়ায় প্রথম বারের মতো বারি -২ মৌরি মশলা চাষ করে সফল কৃষক জহুরা বেগমআটঘরিয়ায় সড়ক দূর্ঘটনায় কুত্তা গাড়ির হেলপার নিহতপেঁয়াজের অস্বাভাবিক দাম রাতে পেঁয়াজখেত পাহাড়ায় কৃষকআটঘরিয়ায় স্বামীর উপর অভিমানে স্ত্রীর আত্মহত্যা : স্বামী আটকআটঘরিয়ায় ও টেবুনিয়া কৃষি ফার্মে হাড় কাঁপানো শীতে বোরো চারা রোপণে ব্যস্ত কৃষকআটঘরিয়ায় আওয়ামী লীগ নেতাকে হাতুড়ি পেটা করলেন বিএনপির নেতাপাবনা-৪ আসনের নৌকার বিজয় নিশ্চিত করতে আটঘরিয়া মুক্তি যোদ্ধাদের মতবিনিময় সভাআটঘরিয়ায় মোবাইল ফোন কিনে না দেয়ায় স্কুল ছাত্রের গলায় ফাঁস নিয়ে আত্নহত্যা

পেঁয়াজের অস্বাভাবিক দাম রাতে পেঁয়াজখেত পাহাড়ায় কৃষক

শেয়ার করতে এখানে চাপ দিন

আরিফ খানঃ পেঁয়াজের ভান্ডার নামে খ্যাত পাবনার বেড়া-সাঁথিয়া উপজেলার হাট-বাজারে মুলকাটা পেঁয়াজ গত এক সপ্তাহ ধরে প্রতি মন পেয়াজ ৪ হাজার থেকে ৪ হাজার ৫শত টাকায় বিক্রি হচ্ছে। পেঁয়াজের এই ভরা মৌসুমে এমন দাম অনেকটাই অস্বাভাবিক। আর এই অস্বাভাবিক দামের কারণে মাঝেমধ্যেই রাতের অন্ধকারে খেত থেকে চুরি হচ্ছে পেঁয়াজ। চুরি ঠেকাতে রাত জেগে লাঠিশোঠা নিয়ে পাহারা দিচ্ছেন দুই উপজেলার কৃষকেরা। কোনো কোনো পেঁয়াজচাষি আবার চোরের ভয়ে পুষ্ট হওয়ার আগেই খেত থেকে পেঁয়াজ তুলে বিক্রি করছেন। প্রতি কেজি পেঁয়াজ পাইকারি ১০০ থেকে ১১০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

উপজেলা কৃষি কার্যালয় সূত্রে জানা যায়,বেড়া উপজেলায় ১৮৮০ হেক্টর জমিতে আগাম বা মুড়িকাটা জাতের পেঁয়াজ আবাদ হয়েছে। হালি জাতের পেঁয়াজ আবাদ হয়েছে ২৮৪০ হেক্টর। সাঁথিয়া উপজেলায় এবার ১৭ হাজার ১০০ হেক্টর জমিতে পেঁয়াজের আবাদ হয়েছে। এর মধ্যে ১৬০০ হেক্টর জমিতে আবাদ করা হয়েছে আগাম বা মুড়িকাটা জাতের পেঁয়াজ। বাকি সাড়ে ১৫ হাজার হেক্টর জমিতে হালি জাতের পেঁয়াজ আবাদ করা হয়েছে।
সরেজমিনে কয়েকটি গ্রাম ঘুরে জানা যায়, গত ১১ ফেব্রুয়ারী জোরদহ গ্রামের ইসাক হাজীর খাকছাড়া গ্রামের আইয়ুব আলীর খেত থেকে পেঁয়াজ চুরি হয়েছে। সাঁথিয়ার পুন্ডুরিয়া গ্রামের হাবুল মানিক মন্টু এক সপ্তাহে ইমদাদুল হক,সহ প্রায় দশজন কৃষকের পেঁয়াজ খেত থেকে তিন থেকে চার মন পেঁয়াজ চুরি হয়ে গেছে।
বৃহস্পতিবার রাতে চাকলা গ্রামের খেতে গিয়ে দেখা যায় পেঁয়াজ পাহাড়ার জন্য খেতের পাশে তুলেছেন কুড়ে ঘড়। খানিকটা দুরে দুরে এরকম ঘর তুলে তিনচার জন করে বসে আড্ডা দিয়ে রাত জেগে পাহাড়া দিচ্ছেন পেঁয়াজ।
কৃষকেরা জানান, মুড়িকাটা পেঁয়াজখেতের সব পেঁয়াজই বেশ বড় হয়েছে। এ পেঁয়াজ তুলতে সময় লাগে না। একজন আধাঘন্টা সময় পেঁয়াজ তুললে এক থেকে দেড়মন পেঁয়াজ তুলতে পারে। তাই সুযোগমতো দুই-তিনজন চোর এসে ১০ থেকে ১৫ মিনিটের মধ্যেই দুই-তিন মণ পেঁয়াজ তুলে নিয়ে যাচ্ছে।
বেড়া চাকলা গ্রামের কৃষক সাইফুল মোল্লা জানান, আমি চার বিঘা জমিতে মুরিকাটা পেঁয়াজ লাগাইছি। দুই বিঘা বিক্রি করেছি। অনেক গ্রামেই পেঁয়াজ চুরি হওয়ার খবর পাওয়া যাচ্ছে। চুরি হওয়ার ভয়ে আমরা সবাই মিলে রাতে পেঁয়াজ পাহাড়া দিচ্ছি। দাম বেশি তাই কাঁচা পেঁয়াজ তুলে বিক্রি করে দিচ্ছি। অথচ এই পেঁয়াজ পুরোপুরি পুষ্ট হতে আরও অন্তত ১০ দিন সময় লাগতো।
সাঁথিয়ার পুন্ডুরিযা গ্রামের আরেক পেঁয়াজচাষি খালেক ব্যাপারি জানান, , ‘এবার পেঁয়াজের ফলন ভালো হইছে। তাছাড়া দামও খুব ভালো পাওয়া যাচ্ছে। কিন্তু ভালো দামের কারণে পেঁয়াজের খেতে চোরের উৎপাত খুব বাড়ছে। সাঁথিয়ার অনেক গ্রামের কৃষকরা মুড়িকাটা পেঁয়াজ আগে লাগায় তাই তারা আগে বিক্রি করেছে। এখন আমাদের এলাকায় পেঁয়াজ উঠতে শুরু হয়েছে। একেতো চোরের ভয় তাছাড়া দামও ভালো তাই পুরাপুরি পাকার আগেই জমির সব পেঁয়াজ তুইল্যা নিত্যাছি।’
চাকলা-পুন্ডুরিয়া গ্রাম ছাড়াও উপজেলার আফড়া, বায়া, শহীদনগরসহ বেশ কিছু গ্রামে খোঁজ নিয়ে দেখা গেছে চোরের ভয়ে পেঁয়াজের খেতের পাশে বসানো হয়েছে অস্থায়ী ছাউনি। রাতের বেলা কৃষকেরা কয়েকজন মিলে সেখানে বসে পেঁয়াজখেত পাহারা দেন। এছাড়া যেখানে পাহারা দেওয়া সম্ভব নয় সেখানে পুষ্ট হওয়ার আগেই কৃষকেরা জমি থেকে পেঁয়াজ তুলে নিচ্ছেন।
বেড়া উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা নুসরাত কবির বলেন, ‘পেঁয়াজের এই ভরা মৌসুমে কৃষকেরা ভালো দামে পেঁয়াজ বিক্রি করছেন। দামের কারণেই কোনো কোনো জায়গায় খেত থেকে পেঁয়াজ চুরি হচ্ছে। তবে বিষয়টি সম্পর্কে শীগ্রই সংশ্লিষ্ট ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও থানায় অবহিত করা হবে।

শেয়ার করতে এখানে চাপ দিন

সর্বশেষ খবর