Monday, মে ২০, ২০২৪
শিরোনাম

এবার সাঁথিয়ায় সন্তান সম্ভাবা বুদ্ধি প্রতিবন্ধি এক মহিলার সন্ধান

শেয়ার করতে এখানে চাপ দিন

আরিফ খাঁন : কাশিনাথপুরে এক বুদ্ধি প্রতিবন্ধির সন্তান প্রসব করার ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতেই এবার সাঁথিয়ায় সন্তান সম্ভাবা আরেক মহিলার সন্ধান মিলেছে। বিষয়টি নিয়ে ফেসবুকসহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অনেক মন্তব্য ও সমালোচনা হচ্ছে।
বিবেক তুমি প্রসারিত হও, মানুষ্যত্ববোধ তুমি জাগ্রত হও। কারণ মানুষ মানুষের জন্য, জীবন জীবনের জন্য। সম্প্রতি সাঁথিয়া উপজেলার কাশিনাথপুরে মানসিক ভারসাম্যহীন এক নারী সন্তান প্রসব করার কয়েকদিন যেতে না যেতেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয় মানসিক ভারসাম্যহীন এই গর্ভবতী নারী।
জানা যায়, গর্ভবতী এই মহিলাটির বসবাসের স্থান সাঁথিয়া পৌরসভার ১নং মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পরিত্যক্ত বিল্ডিংয়ে। সে এখন সন্তান সম্ভাবা। কিছুদিনের মধ্যেই হয়তো সন্তান প্রসব করবেন। খেয়ে না খেয়ে, ঝড় বৃষ্টিসহ বিভিন্ন ব্যথা, বেদনা ও যন্ত্রণা উপেক্ষা করে সাঁথিয়া পৌরসভার উপজেলা চত্বর, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপেক্স উপজেলা পরিষদ, কোনাবাড়ি, বোয়ালমারি, সাঁথিয়া বাজারসহ বিভিন্ন অলিতে গলিতে মানুষের দ্বারে দ্বারে ছুটে চলছে একমুঠো খাবারের জন্য। কিছুদিন পর সে সন্তান প্রসব করবে, মা হবে।
কিন্তু বাবা হবে না কেউ… এমন কথা ফেসবুকে বিভিন্ন লোকজন লিখেছেন। কেউ কেউ বলেছেন, কী হবে তার বংশ পরিচয়? কে নিবে তার দায়ভার? নিশ্চয়ই এই প্রশ্নের সঠিক উত্তর আল্লাহ ছাড়া কারও জানা নেই। কারণ এই সভ্য সমাজে কিছু মানুষরুপি অমানুষ আছে, যারা দেখতে অবিকল আর দশজন মানুষেরই মতোই। অথচ এমন কোন জঘন্য কাজ নেই, যা তারা করতে পারে না। হয়তো তেমনি এক জঘন্য মানুষরুপি নরপশুর যৌন লালসার শিকার হয়ে এই বুদ্ধি প্রতিবন্ধির গর্ভে ধারণ করেছে এই নিষ্পাপ নবজাতক।
আরও জানা যায়, দীর্ঘদিন ধরে সাঁথিয়া পৌরসভার আশেপাশে আনুমানিক ২০/২২ বছর বয়সী মানসিক ভারসাম্যহীন এই মেয়েটি ঘোরাফেরা করতো। তার নাম, ঠিকানা সম্পর্কে স্থানীয় কেউই অবগত নয়। স্থানীয় হোটেল-রেস্টুরেন্ট অথবা সাধারণ মানুষের সাহায্য সহযোগিতায় তার খাওয়া পড়া চলে আর যখন যেখানে, সেখানেই তার রাত্রি যাপন। সম্প্রতি বুদ্ধি প্রতিবন্ধী ওই তরুণীর সন্তান সম্ভবা হওয়ার লক্ষণ প্রকাশ পায়। এরমধ্যে বিষয়টি অনেকেরই দৃষ্টিগোচর হয়।
সম্প্রতি ওই নারীর কয়েকটি ছবি তুলে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেন স্থানীয় কিছু ব্যক্তি। এরপর বেশ কয়েকজন বিষয়টি নিয়ে ফেসবুকে আরও স্ট্যাটাস ও মন্তব্য করেন। তাদের স্ট্যাটাসে ওই নারীর সাহায্যে সমাজের সচেতন মানুষদের এগিয়ে আসার আহবানও জানানো হয়। মানসিক ভারসাম্যহীন ওই নারীকে খাদ্য, চিকিৎসা, ওষুধ ও আর্থিক সহায়তাসহ বিভিন্নভাবে সহযোগিতা করার জন্য সাঁথিয়া পৌরসভার মেয়র, উপজেলা চেয়ারম্যান, উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার প্রতি আহ্বান জানানো হয়। সেই সাথে ওই সব নরপশুদের ধিক্কার ও যারা মানসিক ভারসাম্যহীন একটি মেয়ের দুর্বলতার সুযোগ নিয়ে এমন কাজটি করতে দ্বিধা করেনি, তাদের খুঁজে বিচার দাবী করা হয়।
এ বিষয়ে সাঁথিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এসএম জামাল আহমেদ জানান, ঐ মেয়েটির দেখভাল করা, তার সন্তান প্রসব করাসহ যাবতীয় নিরাপত্তা দিতে তিনি খোঁজ খবর নিচ্ছেন এবং কোন নরপশুর দ্বারা এমন জঘন্য অপরাধ হতে পারে তা খতিয়ে দেখে আইনের আওতায় আনতে সাঁথিয়া থানার ওসি মো. আসাদুজ্জামানকে নির্দেশ দিয়েছেন বলেও তিনি জানান।

শেয়ার করতে এখানে চাপ দিন

সর্বশেষ খবর