Wednesday, এপ্রিল ২৪, ২০২৪
শিরোনাম
পাবনায় বিপুল পরিমাণ টাকাসহ পাউবোর দুই প্রকৌশলী আটক, পালিয়ে গেলেন ঠিকাদারসাঁথিয়ায় ডেপুটি স্পিকারের উদ্বোধনকৃত নতুন হাট ভেঙ্গে দিলেন এসিল্যান্ডসাঁথিয়ায় দোকান ভাঙচুর ও লুটপাটের অভিযোগসাঁথিয়ার কাশিনাথপুরে মাতৃগর্ভে থাকা শিশুর লিঙ্গ পরিচয় প্রকাশ করে রমরমা ব্যবসাআটঘরিয়ায় পহেলা বৈশাখ বাংলা নববর্ষ  উদযাপন উপলক্ষে প্রস্তুতিমুলক আলোচনাআটঘরিয়ার লক্ষীপুরে ব্রীজ ভেঙে ফেলায় বাঁশ কাঠের সাঁকো দিয়ে ১৫ হাজার লোকের পাড়াপারআটঘরিয়ায় প্রথম বারের মতো বারি -২ মৌরি মশলা চাষ করে সফল কৃষক জহুরা বেগমআটঘরিয়ায় সড়ক দূর্ঘটনায় কুত্তা গাড়ির হেলপার নিহতপেঁয়াজের অস্বাভাবিক দাম রাতে পেঁয়াজখেত পাহাড়ায় কৃষকআটঘরিয়ায় স্বামীর উপর অভিমানে স্ত্রীর আত্মহত্যা : স্বামী আটক

একদিকে বন্যা, অন্যদিকে বৃষ্টি ॥ ভাসছে বেড়ার শতাধিক গ্রাম

শেয়ার করতে এখানে চাপ দিন

আরিফ খাঁন, বেড়া : পাবনার বেড়া উপজেলায় সার্বিক বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি হয়েছে। এখন পর্যন্ত শতাধিক গ্রাম বন্যায় ভাসছে। পানি উন্নয়ন বোর্ডের বেড়া কার্যালয়ের তথ্যানুযায়ী, একদিকে বন্যা, অন্যদিকে গত দুই দিনের টানা বৃষ্টিতে উপজেলার নগরবাড়ী পয়েন্টে যমুনা নদীর পানি ২৪ ঘণ্টায় দুই সেন্টিমিটার বেড়ে বিপৎসীমার ৬৭ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।
উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের জনপ্রতিনিধি ও এলাকাবাসীর সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ২৪ ঘণ্টায় উপজেলার আটটি ইউনিয়নের আরও অন্তত ২৫টি গ্রাম নতুন করে প্লাবিত হয়েছে। এতে সব মিলিয়ে উপজেলার শতাধিক গ্রাম প্লাবিত হওয়ায় পানিবন্দী হয়ে রয়েছেন অর্ধ লক্ষাধিক মানুষ।
সরেজমিনে রূপপুর ইউনিয়নের ঘোপসেলন্দা, হাটুরিয়া-নাকালিয়া ইউনিয়নের মালদাপাড়া, পেঁচাকোলাসহ কয়েকটি গ্রাম ঘুরে দেখা গেছে, বেশির ভাগ বাড়ি বন্যার পানিতে তলিয়ে রয়েছে। বন্যার পানিতে রাস্তা-ঘাট তলিয়ে যাওয়ায় ও ঘরে পানি ঢোকায় মানুষের দুর্ভোগ চরমে উঠেছে। গ্রামের উঁচু রাস্তায় রাখা হয়েছে গবাদিপশু।
রূপপুর ইউনিয়নের ঘোপসেলন্দা গ্রামে গিয়ে দেখা গেছে, স্কুল, মাদ্রাসা, রাস্তাসহ প্রচুর বাড়িঘর পানিতে ডুবে রয়েছে। ডুবে গেছে শতাধিক পুকুর ও মাছের ঘের। অনেক বাড়ির উঠোনে ও ঘরে কোমড়সমান পানি লক্ষ্য করা গেছে। এসব বাড়ির লোকজনের দুর্ভোগ চরমে উঠেছে।
রূপপুর ৪ নং ওয়াডের (ইউপি) সদস্য আমিরুল ইসলাম বলেন, ‘বন্যায় আমার ওয়ার্ডের পাঁচ শতাধিক পরিবার পানিবন্দী হয়ে রয়েছে। এর মধ্যে প্রায় দেড়’শ পরিবারের বাড়িঘর পানিতে ডুবে রয়েছে। কোথাও যাওয়ার জায়গা না থাকায় এসব পরিবারের বেশিরভাগ লোকজন পানির ভেতরেই বসবাস করছেন।
উপজেলার পুরানভারেঙ্গা ইউপি চেয়ারম্যান এ এম রফিকউল্লাহ বলেন, আমার ইউনিয়নের নয়টি ওয়ার্ডের মধ্যে আটটি ওয়ার্ডই এখন পানির নিচে। দুই হাজার পরিবারের ১০ হাজারেরও বেশি মানুষ বন্যায় চরম দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন। বন্যাকবলিতদের জন্য এখন পর্যন্ত কোনো সরকারি সহায়তা পাওয়া যায়নি।

শেয়ার করতে এখানে চাপ দিন

সর্বশেষ খবর